শব্দ কাকে বলে

শব্দ কাকে বলে? | Shobdo Kake Bole?

শব্দ কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো শব্দ কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

শব্দ কাকে বলে,শব্দ কত প্রকার,শব্দ কত প্রকার ও কি কি

শব্দ কাকে বলে
শব্দ কাকে বলে

Table of Contents

শব্দ কাকে বলে?

অর্থপ্রকাশক ধ্বনি বা ধ্বনিসমষ্টি অথবা তার লিখিত রূপকে শব্দ বলে।

সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে শব্দ কি বা কাকে বলে?

একটা ধ্বনি, অথবা একাধিক ধ্বনির সমষ্টি, যখন কোন বস্তু বা ভাবকে প্রকাশ করে, তখন সেই ধ্বনি বা ধ্বনি – সমষ্টিকে শব্দ বলে

অর্থ হলো শব্দের প্রাণ। এক বা তার অধিক ধ্বনির সমন্বয়ে যদি কোনো নির্দিষ্ট অর্থ প্রকাশ পায় তবে তাকে শব্দ বলে।

Also Read: অভ্যন্তরীণ শক্তি কাকে বলে?

শব্দের উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়: ক্+অ+ল+অ+ম্ = ধ্বনি। এ ধ্বনি পাঁচটির মিলিত রূপ হলো ‘কলম’। ‘কলম’ এমন একটি বস্তুকে বোঝাচ্ছে, যা দিয়ে লেখা যায়। ‘কলম’- ‘ক’, ‘ল’, ‘ম’ ধ্বনিসমষ্টির মিলিত রূপ, যা অর্থপূর্ণ। সুতরাং ‘কলম’ একটি শব্দ।

এ রকম : আমি, বাজার, যাই ইত্যাদিও শব্দ। এগুলোর আলাদা আলাদা অর্থ আছে। কিন্তু এ রকম আলাদা আলাদা শব্দ মনের ভাব সম্পূর্ণ প্রকাশ করতে পারে না। তাই অর্থপূর্ণ শব্দ জুড়ে জুড়ে মানুষ তার মনের ভাব সম্পূর্ণভাবে প্রকাশ করে থাকে।

Also Read: কম্পিউটার কাকে বলে?

যেমন – “আমি বাজারে যাই।” এটি একটি বাক্য। এখানে বক্তার মনোভাব সম্পূর্ণ প্রকাশ পেয়েছে।

অন্য একটি উদাহরণ হিসেবে বললে বাক্যের মধ্যে কতকগুলি শব্দ থাকে। যেমন – ‘গাছে অনেক ফুল ফুটেছে’; এখানে- গাছে , অনেক, ফুল ও ফুটেছে , এখানে এই চারটি শব্দ।

অথবা আমরা শব্দ কাকে বলে এর উত্তরে বলতে পারি, এক বা একাধিক ধ্বনির সম্মিলনে তৈরি অর্থবোধক ও উচ্চারণ যোগ্য একককে বলা হয় শব্দ। অর্থাৎ ধ্বনির অর্থপূর্ণ মিলন ঘটলে তাকে শব্দ বলে।

এক বা একাধিক ধ্বনির সমন্বয়ে যদি কোনো নির্দিষ্ট অর্থ প্রকাশিত হয়, তবে তাকে শব্দ বলে।

মানুষের কণ্ঠনিঃসৃত অর্থবোধক ধ্বনি বা ধ্বনিসমষ্টিকে শব্দ বলা হয়।

শব্দ কত প্রকার ও কি কি

শব্দ কত প্রকার ও কি কি তা নিয়ে ভাষাতাত্ত্বিকদের মধ্যে মতবিরোধ রয়েছে। তবে তিন ভাবে শব্দের শ্রেণীবিভাগ করা যায়। যেমন –

  1. গঠন অনুসারে শব্দের শ্রেণীবিভাগ।
  2. অর্থ অনুসারে শব্দের শ্রেণীবিভাগ।
  3. উৎপত্তি অনুযায়ী শব্দের শ্রেণীবিভাগ।

নীচে এই বিভাগ গুলো সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

গঠন অনুসারে শব্দের প্রকারভেদ

শব্দের গঠন অনুসারে বাংলা শব্দ দু প্রকার –

  1. মৌলিক শব্দ ও
  2. সাধিত শব্দ।

Also Read: Sentence কাকে বলে? 

অর্থ অনুসারে শব্দের প্রকারভেদ

শব্দকে অর্থের দিক দিয়ে আবার তিন ভাগে বিভক্ত করা যায় –

  1. যৌগিক শব্দ,
  2. রূঢ়ি শব্দ এবং
  3. যোগরূঢ় শব্দ।

উৎপত্তি অনুযায়ী শব্দের প্রকারভেদ

শব্দকে উৎপত্তির দিক থেকে পাঁচ ভাগে ভাগ করা যায়। যথা –

  1. তৎসম শব্দ
  2. অর্ধতৎসম শব্দ
  3. তদ্ভব শব্দ
  4. দেশি শব্দ ও
  5. বিদেশি শব্দ

মৌলিক শব্দ কাকে বলে?

যে শব্দকে বিশ্লেষণ করতে পারা যায় না, বা বিশ্লেষণ করলে ভাঙা অংশের কোনো অর্থ হয় না, তাকে মৌলিক শব্দ বলে। যেমন – মা, হাত, ঘোড়া— এগুলি মৌলিক শব্দ।

মৌলিক শব্দকে ‘স্বয়ংসিদ্ধ’ শব্দও বলে। কারণ, মৌলিক শব্দের অর্থ স্বতঃপ্রকাশিত ও চূড়ান্ত।

সাধিত শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দকে বিশ্লেষণ করলে মৌলিক একটি অংশ পাওয়া যায়, তাকে সাধিত শব্দ বলা হয়।

অথবা আমরা বলতে পারি, যেসব শব্দকে বিশ্লেষণ করলে আলাদা অর্থবোধক শব্দ পাওয়া যায়, সেগুলোকে সাধিত শব্দ বলে।

সাধিত মানে সাধন বা তৈরি করা হয়েছে। যেমন – অজানা = (মুগ্ধ | ধাতু জান) অ জান্ + আ তেমনি ছেলেমি, রাখালি, হাতল প্রভৃতি।

একাধিক মৌলিক শব্দের যোগেও সাধিত শব্দ তৈরি হয়, যেমন – হাতপাখা = হাত+পাখা। তেমনি – জলপথ, দিনরাত, আশা আকাঙ্ক্ষা প্রভৃতি।

যৌগিক শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দের ব্যুৎপত্তিগত অর্থ এবং প্রচলিত অর্থ একই সেই সমস্ত শব্দকে যৌগিক শব্দ বলে।

যেমন – জলজ, বনজ, পাঠক।

রূঢ়ি শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দের ব্যুৎপত্তিগত অর্থের সঙ্গে প্রচলিত অর্থের মিল নেই, সেই সমস্ত শব্দকে রুঢ়ি শব্দ বলে।

আরো স্পষ্টভাবে বললে, যে শব্দে প্রকৃতি প্রত্যয়ের কোনও অর্থই প্রকাশিত না হয়ে লোকপ্রচলিত অন্য অর্থ প্রকাশিত হয়, তাকে ‘রূঢ়’ শব্দ বলে।

হরিণ শব্দটির ব্যুৎপত্তিগত অর্থ ‘হরণকারী’ কিন্তু আদৌ সে অর্থে ব্যবহার না হয়ে ‘হরিণ’ পশুবিশেষকে বোঝাচ্ছে। তাই হরিণ ‘রূঢ়’ শব্দ।

রূঢ় শব্দের অন্যান্য উদাহরণ: মাংস, লাবণ্য, শ্বশুর, মণ্ডপ, বিবাহ, পলাশ, সন্দেশ (মিষ্টান্ন অর্থে) ইত্যাদি।

যোগরূঢ় শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দে প্রচলিত অর্থ এবং ব্যুৎপত্তিগত অর্থ দুটিই বর্তমান থাকে, তবে মূল অর্থটি কিছুটা সংকুচিত থাকে, সেই শব্দকে যোগরূঢ় শব্দ বলে।

যেমন – ‘পঙ্কজ’ শব্দটির ব্যুৎপত্তিগত অর্থ ‘পঙ্কে জন্মে যা’, কিন্তু প্রচলিত অর্থ ‘পদ্ম’। ‘পদ্ম’ও পঙ্কে জন্মে, সুতরাং এই জাতীয় শব্দে দুটি অর্থই বর্তমান।

অনুরূপ উদাহরণ জলদ (ব্যুৎপত্তিগত অর্থ : জল দান করে যা, প্রচলিত অর্থ : মেঘ); রাঘব (ব্যুৎপত্তিগত অর্থ : রঘুবংশজাত, প্রচলিত অর্থ : রামচন্দ্র)।

তৎসম শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দ প্রাচীন ভারতীয় আর্য বা সংস্কৃত ভাষা থেকে সরাসরি বাংলা ভাষায় এসেছে এবং অবিকৃত রূপে বাংলা ভাষায় টিকে আছে সেই সমস্ত শব্দ কে তৎসম শব্দ বলা হয়।

যেমন – পিতা, মাতা, শিক্ষালয়, আচার্য, শিক্ষক, সকল, পদ, ঘাস প্রভৃতি হল বাংলা শব্দ ভান্ডারের তৎসম শব্দের উদাহরণ।

এই তৎসম শব্দ কে আবার অনেক ভাষাতাত্ত্বিক দুই ভাগে ভাগ করেছেন। যথা- সিদ্ধতৎসম শব্দ ও অসিদ্ধতৎসম শব্দ

সিদ্ধতৎসম শব্দ কাকে বলে?

যেসব শব্দ বৈদিক বা সংস্কৃত সাহিত্যে পাওয়া যায় এবং যেগুলি ব্যাকরণ সিদ্ধ সেগুলিকে সিদ্ধতৎসম বলা হয়।

যেমন – সূর্য, মিত্র, কৃষ্ণ, লতা, প্রভৃতি শব্দ।

অসিদ্ধতৎসম শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দ বৈদিক বা সংস্কৃত সাহিত্যে পাওয়া যায় না এবং সংস্কৃত ব্যাকরণ শুদ্ধ নয়, তাকে অসিদ্ধতৎসম শব্দ বলে।

যেমন – কৃষাণ, ঘর, চল, ডাল, প্রভৃতি শব্দ।

অর্ধতৎসম শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দ প্রাচীন ভারতীয় আর্য (বৈদিক/ সংস্কৃত) থেকে মধ্যবর্তী স্তর প্রাকৃতের মাধ্যমে না এসে সোজাসুজি বাংলা ভাষায় এসেছে এবং পরবর্তীকালে লোকমুখে কিঞ্চিৎ পরিবর্তিত ও বিকৃতি লাভ করেছে তাকে অর্ধতৎসম শব্দ বলে।

যেমন – কৃষ্ণ থেকে কেষ্ট, নিমন্ত্রণ থেকে নেমন্তন্ন, ক্ষুধা থেকে খিদে, রাত্রি থেকে রাত্তির প্রভৃতি।

তদ্ভব শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দ প্রাচীন ভারতীয় আর্য বা সংস্কৃতি থেকে সোজাসুজি বাংলা ভাষায় আসেনি মধ্যবর্তী প্রাকৃতের মাধ্যমে পরিবর্তন লাভ করে বাংলা ভাষায় এসেছে তাদের তদ্ভব শব্দ বলা হয়।

খাঁটি বাংলার মূল শব্দ সম্পদ হল তদ্ভব শব্দ। এই শব্দ আবার দুই প্রকার। যথা, নিজস্ব তদ্ভব ও বিদেশি তদ্ভব।

নিজস্ব তদ্ভব কাকে বলে?

যেসব তদ্ভব শব্দ যথার্থই বৈদিক সংস্কৃতির নিজস্ব শব্দের পরিবর্তনের ফলে বাংলা ভাষায় এসেছে সেগুলিকে নিজস্ব তদ্ভব শব্দ বলা হয়ে থাকে।

যেমন – ইন্দ্রাগার > ইন্দাআর > ইন্দ্রা, উপাধ্যায় > উবজঝঅ > ওঝা, একাদশ > এগারহ > এগারো।

বিদেশি তদ্ভব শব্দ কাকে বলে?

যেসব শব্দ প্রথমে বৈদিক বা সংস্কৃত ভাষায় ইন্দো-ইউরোপীয় বংশের অন্য ভাষা থেকে বা ইন্দো- ইউরোপীয় ছাড়া অন্য বংশের ভাষা থেকে কৃতঋণ শব্দ হিসাবে এসেছিল এবং পরে প্রাকৃতের মাধ্যমে পরিবর্তন লাভ করে বাংলায় এসেছে সে সব শব্দকে বিদেশি তদ্ভব শব্দ বলা হয়ে থাকে।

আগন্তুক বা কৃতঋণ শব্দ কাকে বলে?

যেসব শব্দ সংস্কৃতের নিজস্ব উৎস থেকে বা অন্য ভাষা থেকে সংস্কৃত হয়ে আসেনি, অন্য ভাষা থেকে সরাসরি বাংলা ভাষায় এসেছে সেই শব্দগুলিকে আগন্তুক শব্দ বা কৃতঋণ শব্দ বলা হয়।

এই আগন্তুক শব্দ কে আমরা দুই ভাগে ভাগ করে থাকি। যথা- দেশি শব্দ ও বিদেশি শব্দ।

দেশি শব্দ কাকে বলে?

যেসব শব্দ আমাদের দেশের অন্যান্য ভাষা থেকে সোজাসুজি বাংলা ভাষায় প্রবেশ লাভ করেছে তাকে দেশি কৃতঋণ শব্দ বা দেশি শব্দ বলে।

এই দেশি কৃতঋণ শব্দ কে আবার দুইভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে –

অন আর্য দেশি শব্দ কাকে বলে?

এদেশীয় অস্ট্রিক, কোল বা দ্রাবিড়, ভাষা বংশ থেকে যেসব শব্দ সরাসরি বাংলা ভাষায় এসেছে তাকে অনূ আর্য দেশি শব্দ বলে।

যেমন – ডাব, ঝাঁটা, ঝোল, ডোম, ঝিঙ্গা, কুলা, কান্দি, মুড়ি, উচ্ছে, খুকি, ইত্যাদি।

আর্য দেশি শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দ ভারতীয় আর্য ভাষার অন্যান্য শাখা থেকে বাংলায় এসেছে তাকে আর্য দেশি শব্দ বলা হয়।

যেমন- হিন্দি সেলাম, মস্তান, ওস্তাদ, ইত্যাদি। গুজরাটি হরতাল ইত্যাদি।

বিদেশি শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দ এ দেশের বাইরের কোন ভাষা থেকে সরাসরি বাংলা ভাষায় প্রবেশ লাভ করেছে সেই শব্দগুলিকে বিদেশি শব্দ বলা হয়। যেমন –

গ্রিক শব্দ :- যবন, কোণ, হোৱা, ইত্যাদি।

পোর্তুগিজ শব্দ :- আলকাতরা, আলপিন, আলমারি, আনারস, সাবান, আয়া, পাদ্রী, কাজু, বোমা, ফরাসি, বোম্বাই, প্রভৃতি।

ফারসি শব্দ :- সরকার, দরবার, উজির, খরচ, জাহাজ, কামান, প্রভৃতি।

আরবি শব্দ :- আহন, আক্কেল, তাজ্জব, কেচ্ছা, কদর, আমল, সাহেব, হাকিম, প্রভৃতি।

ফরাসি শব্দ :- বুর্জোয়া, কাকে, কার্তুজ, মাদাম, রেস্তোরাঁ, প্যারেজ, এগিট, প্রভৃতি।

ইংরেজি শব্দ :- পুলিশ, আপিল, ইঞ্জিন, নম্বর, হ্যান্ডেল, ইঞ্চি, টেবিল, ডাক্তার, বান্ডিল, আস্তাবল, মাস্টার ম্যানেজার, নেট, রোমান্স, ট্রেন, অফিস, কেয়ার, প্রভৃতি।

ওলন্দাজ শব্দ :- হরতন, রহিতন, ইস্কাপন, তুরুপ, প্রভৃতি।

শব্দ কাকে বলে,শব্দ কত প্রকার,শব্দ কত প্রকার ও কি কি

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *