অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে,অবস্থান্তর ধাতুগুলোর বৈশিষ্ট্য

অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে? | অবস্থান্তর ধাতুগুলোর বৈশিষ্ট্য

অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে,অবস্থান্তর ধাতুগুলোর বৈশিষ্ট্য
অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে

অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে?

যেসব d-ব্লক মৌল অন্তত এমন একটি আয়ন গঠন করে যার ইলেকট্রন বিন্যাসে d অরবিটাল আংশিক ভাবে পূর্ণ থাকে তাদেরকে অবস্থান্তর মৌল বলে।

যেসকল d- ব্লক মৌলের কোন স্থিতিশীল আয়নের সর্ববহিঃস্থ d-অরবিটালের ইলেকট্রনীয় কাঠামো আংশিক পূর্ণ অর্থাৎ d¹ – d⁹ ইলেকট্রনীয় কাঠামো থাকে তাদেরকে অবস্থান্তর মৌল বা অবস্থান্তর ধাতু বলে।

যেমনঃ Fe²+(26) —> 1s² 2s² 2p⁶ 3s² 3p⁶ 3d⁶

Fe²+ স্থিতিশীল আয়নের ইলেকট্রন বিন্যাস করলে দেখা যায়, বহিঃস্থ d- অরবিটাল আংশিক পূর্ণ থাকে। কাজেই বলা যায় Fe²+ একটি অবস্থান্তর মৌল।

অবস্থান্তর ধাতুগুলোর বৈশিষ্ট্য

অবস্থান্তর ধাতুগুলোর চারটি বৈশিষ্ট্যপূর্ণ ধর্ম আছে। যেমন –

ক) অবস্থান্তর ধাতুর জারণ অবস্থা পরিবর্তনশীল। যেমন: Fe এর জারণ অবস্থা +2(FeO) এবং +3 (Fe2O3)।

খ) অবস্থান্তর ধাতু সমূহের যৌগ রঙিন হয়। যেমন: NiSO4 – সবুজ, CuSO4·5H2O – নীল, K2Cr2O4 – কমলা, Fe(OH)3 – বাদামী।

গ) এরা জটিল যৌগ গঠন করে। যেমন: K4[Fe(CN)6], [Cu(NH3)4]SO4, [Ag(NH3)2]NO3

ঘ) অবস্থান্তর ধাতু এবং তাদের যৌগ প্রভাবক হিসেবে কাজ করে। যেমন: NH3 উৎপাদনের হেবার পদ্ধতিতে Fe এবং H2SO4 উৎপাদনের স্পর্শ প্রণালীতে V2O5 প্রভাবক।

Also Read: শিলা কাকে বলে

অবস্থান্তর মৌল রঙিন যৌগ গঠন করে কেন?

অবস্থান্তর ধাতুর অধিকাংশ যৌগই কঠিন অবস্থায় বা দ্রবণে রঙিন হয়। কারণ অবস্থান্তর ধাতুর আয়নগুলোর d-উপস্তর অসম্পূর্ণ থাকে। একই উপস্তরের মধ্যে নিম্নস্তর হতে উচ্চস্তরে এক বা একাধিক ইলেকট্রনকে উন্নীত করতে যে পরিমাণ শক্তির প্রয়োজন হয় তা বেশ কম।

এরূপ সামান্য পরিমাণ শক্তি দৃশ্যমান পরিসরে আলোর বিকিরণ হতে পাওয়া যায়। ফলে অবস্থান্তর ধাতুর আয়নগুলোর এরূপ ধর্ম আছে যে এরা দৃশ্যমান পরিসর হতে নির্দিষ্ট বিকিরণ শোষণ করে এবং বর্ণযুক্ত হয়।

কোনো যৌগ অথবা আয়ন কঠিন বা দ্রবীভূত অবস্থায় দৃশ্যমান আলোর বিশেষ তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের রশ্মি শোষণ করলে ঐ যোগের বা আয়নের রং সৃষ্টি হয়। অবস্থান্তর মৌলের আয়নের ক্ষেত্রে এরূই ঘটে থাকে।

অবস্থান্তর মৌলের বৈশিষ্ট্য

অবস্থান্তর মৌলের কিছু বৈশিষ্ট্যপূর্ণ ধর্ম আছে। যেমন–

  1. এদের পরিবর্তনশীল যোজনী থাকে।
  2. এরা রঙিন যৌগ গঠন করে।
  3. এরা জটিল যৌগ গঠন করে।
  4. এরা প্রভাবক হিসেবে কাজ করে।
  5. এরা সাধারণ তাপমাত্রায় কঠিন।
  6. এরা প্যারাম্যাগণেটিক ধর্ম প্রদর্শন করে।

তো আজকে আমরা দেখলাম যে অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে এবং আরো অনেক বিস্তারিত বিষয় । যদি পোস্ট ভালো লাগে তাহলে অব্যশয়, আমাদের বাকি পোস্ট গুলো ভিসিট করতে ভুলবেন না!

অবস্থান্তর মৌল কাকে বলে,অবস্থান্তর ধাতুগুলোর বৈশিষ্ট্য

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *