টর্ক কাকে বলে

টর্ক কাকে বলে? বিস্তারিত…

টর্ক কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো টর্ক কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

টর্ক কাকে বলে
টর্ক কাকে বলে

টর্ক কাকে বলে?

কোনো অক্ষরের সাপেক্ষে ঘূর্ণনরত বস্তুর উপর যে বিন্দুতে বল ক্রিয়াশীল ঐ বিন্দুর অবস্থান ভেক্টর ও প্রযুক্ত বলের গুণফলকে ঘূর্ণন বল বা টর্ক বলে ৷

অথবা: কোনাে বিন্দু বা অক্ষকে কেন্দ্র করে ঘূর্ণায়মান কোনাে কণার ব্যাসার্ধ ভেক্টর এবং কণার উপর প্রযুক্ত বলের ভেক্টর গুণফলকে ঐ বিন্দু বা অক্ষের সাপেক্ষে কণাটির উপর প্রযুক্ত টর্ক বলে।

অথবা: কোন বস্তু কণার উপর প্রযুক্ত বল এবং ঘূর্ণন অক্ষ থেকে বলের ক্রিয়া রেখার লম্ব দূরত্বের গুণফলকে ঐ অক্ষের সাপেক্ষে টর্ক বলে।

আরো ব্যাখা:

টর্ক বা বলের ভ্রামক বলতে একটি বস্তুকে কোন বল কোন অক্ষ,অবলম্বন বা পিভটের চারদিকে ঘোরানোর প্রবণতা বোঝায়।

বল দ্বারা যেমন ধাক্কা বা টান বোঝায় তেমনি টর্ক বলতে অক্ষের চারদিকে কোন বস্তুর ঘূর্নন প্রবণতা বোঝানো হয়ে থাকে।গাণিতিকভাবে টর্ক হল কোন অক্ষের সাপেক্ষে ঘূর্ননশীল বস্তুর উপর ক্রিয়ারত বল এবং অক্ষ থেকে ঐ বস্তুর দুরত্তের ভেক্টর গুনফল।

সহজভাবে বলতে গেলে টর্ক দ্বারা কোন অক্ষের চারদিকে কোন বস্তুর ঘূর্নন প্রবণতার পরিমাপ বোঝানো হয়ে থাকে।ঊদাহরনস্বরুপ, কোন যন্ত্রে আটকানো একটি নাট বা বল্টু খুলতে হলে তাতে রেঞ্চ আটকিয়ে এর ঘোরানোর সময় রেঞ্চের হাতলে টর্ক সৃষ্টি হয়।

Also Read: ক্ষেত্রফল কাকে বলে

টর্ক কি?

টর্ক কি: কোনো দৃঢ় বস্তু একটি বিন্দুকে কেন্দ্র করে ঘুরতে পারে । যেমন দেয়ালে ঝুলানো ফুটো পেরেক ও সুতার সংযোগ বিন্দুর সাপেক্ষে ঘুরতে থাকে। আবার গাড়ির চাকা তার অক্ষের সাপেক্ষে ঘুরতে পারে।

কোনো নির্দিষ্ট অক্ষের চারদিকে ঘূর্ণায়মান কোনো বস্তুতে ত্বরণ সৃষ্টির জন্য প্রযুক্ত দ্বন্দ্বের ভ্রামককে টর্ক বা বলের ভ্রামক বলে। একে 𝜏 (টাউ) দ্বারা সূচিত করা হয়।

ব্যাখ্যাঃ ধরা যাক, o বিন্দুতে একটি পাতলা পাত অনুভূমিক অবস্থায় এমনভাবে আবদ্ধ আছে যে তা উলম্ব অক্ষ XOY -এর চতুর্দিকে O কে কেন্দ্র করে ঘুরতে পারে। পাতটিকে তার কোনো বিন্দু C -তে বল প্রয়োগ করে ঘুরালে দেখা যায় যে,

  1. O হতে প্রযুক্ত বল F -এর লম্ব দূরত্ব d যত বেশি হবে, ঘূর্ণন সৃষ্টির ক্ষমতাও তত বেশি হবে।
  2. প্রযুক্ত বলের মান যত বেশি হবে, তার ঘূর্ণন সৃষ্টির ক্ষমতাও তত বেশি হবে।
  3. বলের ক্রিয়ামুখ O বিন্দু অভিমুখী হলে, পাতটিতে কোনো ঘূর্ণন হবে না।
    উপরোক্ত কারণে কোনো অক্ষ বা বিন্দুর সাপেক্ষে কোনো বলের ভ্রামকের মান বলের পরিমাণ ও অক্ষ হতে বলের ক্রিয়া রেখার লম্ব দূরত্ব d -এর গুণফল দ্বারা নির্দিষ্ট হয়।

𝜏 = d x F বা, বলের ভ্রামক বা টর্ক = বল x লম্ব দূরত্ব চিত্র হতে O হতে F বলের ক্রিয়াবিন্দু C –এর দূরত্ব = r ও F বলের ক্লিয়ারেখা NC – এর দূরত্ব = d এবং <NCO = θ নির্দেশ করা হয়েছে। কাজেই , ON = d = r sinθ

𝜏 = d x F = r F sinθ

Also Read: ভাষা কাকে বলে

টর্ক বা বলের ভ্রামকের একক কী?

এস.আই. পদ্ধতিতে টর্ক বা বলের ভ্রামকের একক নিউটন-মিটার (N-m)।

টর্ক বা বলের ভ্রামকের মাত্রা সমীকরণ কী?

টর্ক বা বলের ভ্রামকের সংজ্ঞা হতে এর মাত্রা সমীকরণ প্রতিপাদন করা যায়। বলের ভ্রামকের মাত্রা সমীকরণ, [টর্ক বা বলের ভ্রামক] = [বল x দূরত্ব] = [MLT-2 x L ] = [ ML2T-2 ]

Also Read: বৃত্তচাপ কাকে বলে

টর্কের তাৎপর্য

টর্কের তাৎপর্য: একটি অক্ষের সাপেক্ষে কোনো টর্ক থেকে বোঝা যায় কোনো একটি নির্দিষ্ট ভরের বস্তুকে কত সহজে ওই অক্ষটির সাপেক্ষে ঘুরানো যাবে। অর্থাৎ টর্ক যত বেশি হবে তত সহজে ওই টর্কের সাহায্যে কৌণিক বেগ পরিবর্তন করা সম্ভব হবে।

তো আজকে আমরা দেখলাম যে টর্ক কাকে বলে এবং আরো অনেক বিস্তারিত বিষয় । যদি পোস্ট ভালো লাগে তাহলে অব্যশয়, আমাদের বাকি পোস্ট গুলো ভিসিট করতে ভুলবেন না!

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *