ব্যাপন কাকে বলে,ব্যাপন এর উদাহরণ,ব্যাপন প্রভাবকসমূহ

ব্যাপন কাকে বলে? | ব্যাপন এর উদাহরণ | ব্যাপন প্রভাবকসমূহ

ব্যাপন কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো ব্যাপন কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

ব্যাপন কাকে বলে,ব্যাপন এর উদাহরণ,ব্যাপন প্রভাবকসমূহ
ব্যাপন কাকে বলে

ব্যাপন কাকে বলে?

একই তাপমাত্রা ও বায়ুমন্ডলীয় চাপে কোনো কঠিন, তরল বা গ্যাসীয় পদার্থের স্বতঃস্ফূর্তভাবে অধিক ঘন স্থান থেকে কম ঘন স্থানে সমভাবে ছড়িয়ে পড়া বা বিস্তার লাভ করার প্রক্রিয়াকে ব্যাপন বলে।

যে প্রক্রিয়ায় কোন পদার্থের অণুগুলো বেশি ঘনত্বের অঞ্চল হতে কম ঘনত্বের অঞ্চলের দিকে স্বতঃস্ফূর্ত ও সমভাবে সঞ্চালিত হয় তাকে ব্যাপন (Diffusion) বলে।

অর্থাৎ দুটি অসমান ঘনত্বের গ্যাসের পরস্পরের মধ্যে মিশ্রণের পদ্ধতিকেই বলা হয় গ্যাসের ব্যাপন প্রণালি।

ব্যাপন এর উদাহরণ

  1. বাড়িতে পােলাও কোর্মা রান্না করলে তার সুগন্ধ একই প্রক্রিয়ায় সবদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এটিও একটি ব্যাপন প্রক্রিয়া ।
  2. পারফিউম স্প্রে করলে ধীরে ধীরে সম্পূর্ণ ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। পারফিউমের এই ছড়িয়ে পড়াকে ব্যাপন প্রক্রিয়া বলে।
  3. ক্লোরিন বাতাসের চেয়ে প্রায় ২.৫ গুণ ভারী। কিন্তু আপনি যদি একটা ঘরের মধ্যে ক্লোরিন গ্যাস পূর্ণ পাত্র খুলে দেন তাহলে দেখবেন এক সময় সমস্ত ঘরের মধ্যে Cl2 গ্যাস সমানভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। ঘরের প্রত্যেক অংশের বায়ু পরীক্ষা করলে দেখা যাবে সব জায়গায় বাতাস এবং ক্লোরিনের অনুপাত সমান।
  4. একটি পাত্রে কিছু পানি নিয়ে তাতে পটাসিয়াম পারম্যাঙ্গানেট এর কয়েকটি দানা ছেড়ে দিলে দেখা যায় ধীরে ধীরে দানাসমূহের কাছ থেকে পানির রং বেগুনি হওয়া শুরু করেছে এবং ক্রমশ সে রং সম্পূর্ণ পানিতে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। পানিকে কোনরূপ নাড়াচাড়া না করা হলেও তা ঘটে। এখানে রঙিন পারম্যাঙ্গানেট আয়ন পানি অণূর মধ্যে ব্যাপন করতে থাকে।

ব্যাপন প্রভাবকসমূহ

  1. তাপমাত্রা
  2. বায়ুমন্ডরের চাপ
  3. পদার্থের অণুর ঘনত্ব
  4. মাধ্যমের ঘনত্বের

তাপমাত্রা

তাপমাত্রা বাড়লে সাধারণত ব্যাপন হার বাড়ে।

বায়ুমন্ডরের চাপ

বায়ুমন্ডলের চাপ বাড়লে ব্যাপন হার কমবে কিন্তু বায়ুমন্ডলের চাপ কম হলে ব্যাপন হার বাড়বে।

পদার্থের অণুর ঘনত্ব

যার ব্যাপন ঘটবে সে পদার্থের অণুর ঘনত্ব বেশি থাকলে ব্যাপন হার বেশি হবে। অণুর ঘনত্ব কম হলে ব্যাপন হার কম হবে।

মাধ্যমের ঘনত্বের

পানি, বায়ু ইত্যাদি যে মাধ্যমে ব্যাপন হবে সে মাধ্যমের ঘনত্ব বেশি হলে ব্যাপন হার কম হবে, মাধ্যমের ঘনত্ব কম হলে ব্যাপন হার বাড়বে।

তো আজকে আমরা দেখলাম যে ব্যাপন কাকে বলে এবং আরো অনেক বিস্তারিত বিষয় । যদি পোস্ট ভালো লাগে তাহলে অব্যশয়, আমাদের বাকি পোস্ট গুলো ভিসিট করতে ভুলবেন না!

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *