স্থুলকোণ কাকে বলে,স্থুলকোণ ত্রিভুজের বৈশিষ্ট্য

স্থুলকোণ কাকে বলে? | স্থূলকোণী ত্রিভুজের বৈশিষ্ট্য | স্থূলকোণ এর বৈশিষ্ট্য

স্থুলকোণ কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো স্থুলকোণ কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

স্থুলকোণ কাকে বলে,স্থুলকোণ ত্রিভুজের বৈশিষ্ট্য
স্থুলকোণ কাকে বলে

স্থুলকোণ কাকে বলে?

৯০° অপেক্ষা বড় এবং ১৮০° অপেক্ষা ছোট কোণকে স্থুলকোণ বলে। অন্যভাবে বললে, এক সমকোণ অপেক্ষা বড় এবং দুই সমকোণ অপেক্ষা ছোট কোণকে স্থুলকোণ বলে। আবার স্থূলকোণকে আরেকভাবে সংজ্ঞায়িত করলে দাড়ায়, সমকোণ অপেক্ষা বড় এবং সরলকোণ অপেক্ষা ছোট কোণকে স্থূলকোণ বলে।

যে কোণের মান ৯০° এর চেয়ে বড় এবং ১৮০° এর চেয়ে ছোট তাকে স্থূলকোণ বলে।

স্থূলকোণী ত্রিভুজের বৈশিষ্ট্য

  1. স্থূলকোণী ত্রিভুজের একটি কোণ স্থূলকোণ অর্থাৎ ৯০° অপেক্ষা বেশি হয় কিন্তু ১৮০° অপেক্ষা কম।
  2. স্থূলকোণী ত্রিভুজের বাকী কোণ দুটি সূক্ষকোণ।

স্থূলকোণী ত্রিভুজের প্রকারভেদ

বাহুভেদে স্থূলকোণী ত্রিভুজ দুই ধরণের। যথা –

  1. বিষমবাহু স্থূলকোণী ত্রিভুজ এবং
  2. সমদ্বিবাহু স্থূলকোণী ত্রিভুজ।

স্থূলকোণী ত্রিভুজ

যে ত্রিভুজের একটি কোণ স্থূলকোণ বা এক সমকোণ অপেক্ষা বড় তাকে স্থূলকোণী ত্রিভুজ বলে।

স্থূলকোণ কাকে বলে উদাহরণ দাও

যদি প্রশ্ন করা হয় স্থূলকোণ কাকে বলে উদাহরণ দাও – তাহলে স্থুলকোণের বাস্তবভিত্তিক একটি উদাহরণ হলো: একটি এনালগ ঘড়িতে যখন ঠিক ৪টা বাজে, তখন ঘড়ির ঘণ্টার কাটা ও মিনিটের কাটার মধ্যে একটি স্থূলকোণ তৈরি হয়। কারণ ঠিক ৪টার সময় ঘড়ির ঘণ্টার কাটা ও মিনিটের কাটার মধ্যবর্তী যে কোণ উৎপন্ন হয় তার পরিমাপ ১২০০।

Also Read: ইবাদত কাকে বলে

তো আজকে আমরা দেখলাম যে স্থুলকোণ কাকে বলে এবং আরো অনেক বিস্তারিত বিষয় । যদি পোস্ট ভালো লাগে তাহলে অব্যশয়, আমাদের বাকি পোস্ট গুলো ভিসিট করতে ভুলবেন না!

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *