ক্রোমোজোম কাকে বলে? | ক্রোমোজোম কি | ক্রোমোজোম কত প্রকার

ক্রোমোজোম কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো ক্রোমোজোম কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

ক্রোমোজোম কাকে বলে,ক্রোমোজোম কি,ক্রোমোজোম কত প্রকার,ক্রোমোসোমের অবস্থান,ক্রোমোসোম এর দৈর্ঘ্য,ক্রোমোসোমের কাজ,ক্রোমোজোমের সংখ্যা,ক্রোমোজোমের সংজ্ঞা,ক্রোমোজোমের রাসায়নিক গঠন,ক্রোমোজোমের প্রকারভেদ

ক্রোমোজোম কাকে বলে,ক্রোমোজোম কি,ক্রোমোজোম কত প্রকার,ক্রোমোসোমের অবস্থান,ক্রোমোসোম এর দৈর্ঘ্য,ক্রোমোসোমের কাজ,ক্রোমোজোমের সংখ্যা,ক্রোমোজোমের সংজ্ঞা,ক্রোমোজোমের রাসায়নিক গঠন,ক্রোমোজোমের প্রকারভেদ
ক্রোমোজোম কাকে বলে

ক্রোমোজোম কাকে বলে?

ক্রোমোজোম কাকে বলে : কোষের নিউক্লিয়াসে অবস্থিত অনুলিপন ক্ষমতা সম্পন্ন ক্ষুদ্রাঙ্গ যা বংশগতীয় উপাদান, মিউটেশন, প্রকরন ইত্যাদি কাজে ভূমিকা পালন করে তাকে ক্রোমোসোম বলে। ক্রোমোসোম অর্থ হলো রঞ্জিত দেহ বা রংধারনারী দেহ।

প্রতিটি কোষে অবস্থিত একপ্রকার তন্তময় বস্তু যা ক্ষারীয় রঞ্জক দ্বারা রঞ্জিত হয় তাকে ক্রোমোজোম বলা হয়। সকল জীবকোষের ক্রোমোজোম তন্তুর মত হলেও এদের আকৃতি কোষ বিভাজনের বিভিন্ন দশায় ও উপদশায় পরিবর্তিত হয়।

ক্রোমোজোম ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক এসিড বা ডিএনএ বা জীন অণু ধারণ করে এবং ডিএনএ-এর মাধ্যমে প্রোটিন সংশ্লেষ করে। ইহা নিউক্লিয়াসের মধ্যে অবস্থিত থাকে।

ক্রোমোসোমের অবস্থান

নিউক্লিয়াসের মধ্যে ক্রোমোসোম অবস্থান করে। তবে কখনো কখনো নিউক্লিয়াসের বাইরে সাইটোপ্লাজমেও অবস্থান করে।

ক্রোমোসোম এর দৈর্ঘ্য

ক্রোমোসোমের দৈর্ঘ্য বিভিন্ন রকম হতে পারে। দৈর্ঘ্য ০.২ মাইক্রো মিটার (Mm) থেকে ৫০ মাইক্রোমিটার (Mm) এবং ০.২ মাইক্রোমিটার (Mm) থেকে ২ মাইক্রোমিটার (Mm) পর্যন্ত হয়ে থাকে। মানবদেহে ক্রোমোসোম 6Mm পর্যন্ত হতে পারে।

ক্রোমোসোমের কাজ

ক্রোমোসোম এর কাজ নিচে তুলে ধরা হলো–

  1. বংশগতির বৈশিষ্ট্য ধারণ করে।
  2. DNA ধারণ করে।
  3. জীবের জৈব রাসায়নিক ও শরীরবৃত্তিক কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে।
  4. কোষ বিভাজনে অংশগ্রহণ করে।

ক্রোমোজোমের সংখ্যা

কোনো প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত প্রতিটি জীবের দেহকোশের ক্রোমোজোম সংখ্যা নির্দিষ্ট , অর্থাৎ ধ্রুবক ( Constant ) । উদাহরণস্বরূপ , মানুষের দেহকোষে ক্রোমোজোমের সংখ্যা 23 জোড়া বা 46 টি । এর মধ্যে 44 টি অটোজোম ও 2 টি সেক্স ক্রোমোজোম ।

Also Read: ভালবাসা কাকে বলে

ক্রোমোজোমের সংজ্ঞা

কোশের নিউক্লিয়াসের ভিতরে অবস্থিত নিউক্লিক অ্যাসিড ও প্রোটিন সমন্বয়ে গঠিত স্বপ্রজননক্ষম যে সুতোর মতো অংশ প্রজাতির বংশগত বৈশিষ্ট্যাবলি বংশ পরম্পরায় সঞ্চারিত করে তাকে ক্রোমোজোম ( Chromosome ) বলে ।

ক্রোমোজোমের রাসায়নিক গঠন

ইউক্যারিওটিক কোশের ক্রোমোজোম যে জৈব পদার্থ দিয়ে গঠিত হয় তাকে ক্রোমাটিন ( Chromatin ) বলে । ক্রোমাটিন ( i ) 45 % ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক অ্যাসিড ( Deoxyribonucleic Acid or DNA ) এবং ( ii ) 45 % হিস্টোন ( Histone ) নামক ক্ষারীয় প্রোটিন দ্বারা গঠিত । এছাড়া ক্রোমাটিনে ( iii ) প্রায় 5 % রাইবোনিউক্লিক অ্যাসিড Ribonucleic Acid or RNA ) , ( iv ) প্রায় 5 % অহিস্টোন নামক আম্লিক প্রোটিন এবং ( v ) অতি সামান্য পরিমাণে ধাতব আয়ন ( Ca , Mg , Fe প্রভৃতি ) -এর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় ।

ক্রোমোজোমের প্রকারভেদ

কার্যভেদে ক্রোমোজোম দুই প্রকারের , যথা-
( i ) অটোজোম ( Autosome ) এবং
( ii ) সেক্স ক্রোমোজোম ( Sex Chromosome )

Also Read: বিশেষায়িত ব্যাংক কাকে বলে

অটোজোম ( Autosome ) :

যে ক্রোমোজোম দ্বারা জীবের লিঙ্গ নির্ধারণ ব্যতীত অপরাপর বৈশিষ্ট্য নির্ধারিত হয় তাকে অটোজোম বলে । মানুষের দেহকোশে অটোজোমের সংখ্যা 22 জোড়া অর্থাৎ 44 টি । এই ক্রোমোজোম পুরুষ ও স্ত্রী দেহকোশে একই সংখ্যায় পাওয়া যায় ।

সেক্স ক্রোমোজোম ( Sex Chromosome ) :

যে ক্রোমোজোম দ্বারা জীবের লিঙ্গ নির্ধারিত হয় তাকে লিঙ্গ নির্ধারক ক্রোমোজোম বা সেক্স ক্রোমোজোম বলে । মানুষের দেহকোশে এরূপ ক্রোমোজোমের সংখ্যা এক জোড়া , অর্থাৎ 2 টি । মহিলাদের ক্ষেত্রে XX এবং পুরুষ মানুষের XY সেক্স ক্রোমোজোম থাকে ।

তো আজকে আমরা দেখলাম যে ক্রোমোজোম কাকে বলে এবং আরো অনেক বিস্তারিত বিষয় । যদি পোস্ট ভালো লাগে তাহলে অব্যশয়, আমাদের বাকি পোস্ট গুলো ভিসিট করতে ভুলবেন না!

ক্রোমোজোম কাকে বলে,ক্রোমোজোম কি,ক্রোমোজোম কত প্রকার,ক্রোমোসোমের অবস্থান,ক্রোমোসোম এর দৈর্ঘ্য,ক্রোমোসোমের কাজ,ক্রোমোজোমের সংখ্যা,ক্রোমোজোমের সংজ্ঞা,ক্রোমোজোমের রাসায়নিক গঠন,ক্রোমোজোমের প্রকারভেদ

Leave a Comment