প্লাস্টিড কাকে বলে,প্লাস্টিড কয় প্রকার ও কি কি,প্লাস্টিড কাকে বলে বাংলা

প্লাস্টিড কাকে বলে | প্লাস্টিড কয় প্রকার ও কি কি | প্লাস্টিড কাকে বলে বাংলা

প্লাস্টিড কাকে বলে: আজকে আমরা জানবো প্লাস্টিড কাকে বলে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। আশা করি আপনারা এই প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন।

প্লাস্টিড কাকে বলে,প্লাস্টিড কয় প্রকার ও কি কি,প্লাস্টিড কাকে বলে বাংলা
প্লাস্টিড কাকে বলে

প্লাস্টিড কাকে বলে?

উদ্ভিদ কোষে অবস্থিত দুটি পর্দা পরিবেষ্টিত এবং বিশেষ বিপাকীয় কাজে লিপ্ত ( রঞ্জক যুক্ত বা রঞ্জক বিহীন) অঙ্গাণুকে প্লাস্টিড বলে।

Or: সজীব উদ্ভিদকোষের সাইটোপ্লাজমে বর্ণহীন অথবা বর্ণযুক্ত গোলাকার বা ডিম্বাকার অঙ্গাণুকে প্লাস্টিড বলে। প্লাস্টিডে বিভিন্ন রঞ্জক পদার্থ থাকায় একে ধারণকারী উদ্ভিদ বর্ণময় হয়। দুই ধরনের প্লাস্টিডের ভেতর ক্রোমোপ্লাস্টিড বর্ণযুক্ত ও লিউকোপ্লাস্টিড বর্ণহীন। একে কোষের বর্ণাধার বলে।

প্লাস্টিডের আবিষ্কার ও নামকরণ

বিজ্ঞানী স্কিম্পার উদ্ভিদ কোষে সবুজ কণিকার নামকরণ করেন ক্লোরোপ্লাস্ট। মেয়ার এদের অটোপ্লাস্ট নাম দেন এবং অন্য বর্ণের প্লাস্টিডগুলোকে ট্রফোপ্লাস্ট নাম দেন। বিজ্ঞানী মেয়েন উদ্ভিদ কোষে এদের অবস্থান এবং প্রকৃতি সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্য জানান।

Also Read: ভিনেগার কাকে বলে

প্লাস্টিড কয় প্রকার ও কি কি?

বর্ণের তারতম্য অনুসারে প্লাস্টিডের শ্রেণীবিভাগ মূলত তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়। যথা লিউকোপ্লাস্ট, ক্রোমোপ্লাস্ট এবং ক্লোরোপ্লাস্ট।

১। লিউকোপ্লাস্ট কাকে বলে

রঞ্জকবিহীন বর্ণহীন প্লাস্টিড যা উদ্ভিদের বিভিন্ন বিপাকে অংশ নেয় তাদের লিউকোপ্লাস্ট বলে। এরা বর্ণহীন প্লাস্টিড। দেখতে দন্ডাকার বা গোলাকার। ভ্রুণকোশ এবং যেসব কোষে কোন প্রকার সূর্যের আলো পৌঁছাতে পারে না সেইসব কোষে লিউকোপ্লাস্ট থাকে। এরা বিভিন্ন উদ্ভিদ অঙ্গের তরল খাদ্যকে বিভিন্ন ধরনের সঞ্চিত খাদ্য বস্তুতে রূপান্তরিত করতে সাহায্য করে—শ্বেতসার, তেল, প্রোটিন। এরা প্রোপ্লাস্টিড থেকে তৈরি হয়।এরা আলোকের উপস্থিতিতে ক্রোমোপ্লাস্ট ও ক্লোরোপ্লাস্টে রূপান্তরিত হয়। এই জাতীয় প্লাস্টিডে ল্যামেলিয় অংশ স্তরীভূত অবস্থায় থাকে না।

২। ক্রোমোপ্লাস্ট কাকে বলে

অসবুজ রঙিন প্লাস্টিড যারা উদ্ভিদের নানা ধরনের কাজে সাহায্য করে তাদের ক্রোমোপ্লাস্ট বলে। এরা হলদে ও কমলা রঙের প্লাস্টিড। এতে কমলা রঙের ক্যারোটিন এবং হলুদ রংয়ের জ্যান্থোফিল রঞ্জক থাকে। এরা গোলাকার লম্বা তারকাকার প্রভৃতি বিভিন্ন আকৃতির হয়। এরা প্রোপ্লাস্টিড থেকে তৈরি হয়। এরা ফুল ফল মূল প্রভৃতি বিভিন্ন উদ্ভিদ অঙ্গে থেকে অঙ্গকে রঞ্জিত করে কিন্তু সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ায় সরাসরি অংশ নেয় না।

৩। ক্লোরোপ্লাস্ট কাকে বলে

সবুজ রঞ্জক যুক্ত প্লাস্টিড যারা সালোকসংশ্লেষে সরাসরি অংশ নেয় তাদের ক্লোরোপ্লাস্ট বলে।
ক্লোরোপ্লাস্টের সবুজ রঞ্জক ক্লোরোফিল এবং কমলা রঞ্জক ক্যারোটিন থাকে।সব ধরনের প্লাস্টিক এর মধ্যে ক্লোরোপ্লাস্ট সম্বন্ধে বেশি করে জানা সম্ভব হয়েছে।

ক্লোরোপ্লাস্টের উৎপত্তি

ভাজক কলা কোষ এর আদি প্লাস্টিড বা প্রোপ্লাস্টিড জাতীয় বর্ণহীন থলির মতো অঙ্গাণু থেকে এরা সূর্যালোকের উপস্থিতিতে রূপান্তরিত হয়ে ক্লোরোপ্লাস্টে পরিণত হয়।কোষ বিভাজনের সময় ক্লোরোপ্লাস্ট গুলো সমান দুই অংশে বিভাজিত হয়ে অপত্য কোষের মধ্যে সমানভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

SOME FAQ:

প্লাস্টিড এর আবিষ্কারক কে?

১৮৮৩ খ্রিস্টাব্দে শিম্পার (Schimper, ১৮৫৬-১৯০১) সর্বপ্রথম উদ্ভিদকোষে সবুজবর্ণের প্লাস্টিড লক্ষ করেন এবং এর নামকরণ করেন ক্লোরোপ্লাস্ট। পরবর্তীকালে অন্যান্য প্লাস্টিড আবিষ্কৃত হয়েছে।

প্লাস্টিড এর কাজ কি?

প্লাস্টিড এর কাজ হল – খাদ্য প্রস্তুত করা ও খাদ্য সঞ্চয় করা এবং উদ্ভিদদেহকে বর্ণময় ও আকর্ষণীয় করে পরাগায়নে সাহায্য করা ।প্লাস্টিড এবং ক্লোরোপ্লাস্ট এর কাজ হল উদ্ভিদকে বর্ণময় এবং আকর্ষনীয় করে তোলা।ফটোফসফোরাইলেশান ও ফটোরেস্পিরেশন এ সহায়তা করে।

তো আজকে আমরা দেখলাম যে প্লাস্টিড কাকে বলে এবং আরো অনেক বিস্তারিত বিষয় । যদি পোস্ট ভালো লাগে তাহলে অব্যশয়, আমাদের বাকি পোস্ট গুলো ভিসিট করতে ভুলবেন না!

Also Read: প্যাটার্ন কাকে বলে

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *